Support 4thPillars

×
  • আমরা
  • নজরে
  • ছবি
  • ভিডিও

  • আহা এমনটা যদি পাঁচ বছর ধরেই হত!

    শুভস্মিতা কাঞ্জী | 20-02-2021

    প্রতীকী ছবি।

    অন্য সময় যে কাজ করতে আপনাকে নিদেনপক্ষে দুই থেকে তিনবার সরকারি অফিসে হাজিরা দিতে হয়, ভোটের সময় সেটা একবারেই করা সম্ভব হয়। তার জন্য আবার আপনাকে বেশি ছোটাছুটিও করতে হয় না। হাত বাড়ালেই তখন সব পাওয়া যায়। মজার না? আমার তো বেশ লাগল ব্যাপারটা। 

     

    আসন্ন ভোটের আগে পশ্চিমবঙ্গ সরকারের হিট প্রকল্প হচ্ছে স্বাস্থ্যসাথী প্রকল্প। তো ভাবলাম সরকার যখন ব্যবস্থা করেছে, তো সেটা নেওয়া যাক। নাগরিকের অধিকার ছাড়ব কেন? অতএব যেমন ভাবা তেমন কাজ। মায়ের নামেই ফর্ম তোলা হল। লাইনে দাঁড়িয়ে ফর্মটা নিতে লেগেছিল পাক্কা সাড়ে তিন মিনিট। আজ্ঞে ঠিক পড়লেন, সাড়ে তিন মিনিট। রোদের মধ্যে ঘন্টার পর ঘন্টা লাইন দিয়ে মোটেই অপেক্ষা করতে হয়নি। অবশ্য এটা কোনও পরীক্ষার ফর্ম হলে কী হত, তা বলা মুশকিল! 

     

    ফর্ম নেওয়ার সময়ই বলে দেওয়া হয়েছিল কী কী ডকুমেন্টস লাগবে। ফিল-আপ করে ডকুমেন্টস সমেত জমা দেওয়ার দিন পৌঁছলাম। সেদিন তো আরও মজার। লাইনের বালাই ছিল না। স্রেফ যাও, ফর্ম জমা দাও, ছবি তোলো, আর হাতে গরম কার্ড নিয়ে বাড়ি এসো। একটা ঘরে একই কাজ একসঙ্গে চার পাঁচটা টেবিলে চলছে। অতএব ভিড় জমার কোনও প্রয়োজনীয়তাই নেই। সরকারি কাজ যে এত তাড়াতাড়ি সম্ভব সেদিনের আগে আমার ধারণাই ছিল না। 

     

    স্বাস্থ্যসাথী তো হল। এরপর এল বিধবা ভাতা। ভাবলাম এটাও করানো যাক। কী ভাবছেন আমাকে সল্টলেক দৌড়তে হয়েছিল? আজ্ঞে না মশাই। তাহলে নিদেনপক্ষে কর্পোরেশন অফিস? না, তাও না। পাড়ার মধ্যে কাউন্সিলরের অফিসেই কাজ হয়ে গেছে, তাও মাত্র একদিনে। কয়েক মিনিটের মধ্যেই। হ্যাঁ, সরকারি কাজ সম্ভব, আর এত তাড়াতাড়িই। কিন্তু দুঃখের বিষয়, এটা বিশেষ একটা সময়েই সম্ভব

     

    সাধারণ নাগরিক হিসেবে এখানে আমার একটাই প্রশ্ন, ভোটের সময় যদি সব কাজ এত জলদি হতে পারে, বাকি সময়গুলোয় নয় কেন? ভোটের সময় যদি পাড়ার মধ্যে বা বাড়ির কাছাকাছিই সমস্ত কাজ করে নেওয়া যায়, তাহলে অন্য সময় হিল্লিদিল্লি দৌড়তে হয় কেন? এখান থেকেই প্রমাণিত, যে কাজ মূল কার্যালয়ে সম্ভব, সেই একই কাজ কাউন্সিলর অফিস বা কর্পোরেশন অফিস থেকেও সম্ভব। তাহলে অন্যান্য সময় কেন সেই সুযোগ সুবিধা রাখা হয় না? এটা কি শুধুই ভোট পাওয়ার সহজ টোপ? ভোটের আগে কাজের সুবিধা করে দিয়ে মনে করিয়ে দেওয়া যে, আমরা কাজ করছি? 

     

    সাধারণ মানুষের সহয়তা করাই যদি মূল উদ্দেশ্য হয়, তাহলে কাজ সারা বছর, সবসময় এই ভাবেই চলুক। এই তৎপরতায়, আঞ্চলিক ভাবেই। মানুষের উপকার এভাবেই হবে। এটুকুই সাধারণ মানুষ চায় সরকারের থেকে। মানুষ সব মনে রাখবে, শুধু ভোট না, অন্য সময়ও।


    শুভস্মিতা কাঞ্জী - এর অন্যান্য লেখা


    সমকামিতার ইঙ্গিতপূর্ণ বিজ্ঞাপন তুলে নেবে না জানিয়ে সদর্থক বার্তা ক্যাডবেরির।

    বিচ্ছেদের পর নতুন শুরু কি আর সম্ভব? হলে কেমন, সেই গল্পই বলল এক্সিট।

    64 বছর বয়সে মেডিক্যাল পড়তে ভর্তি হলেন জয় কিশোর।

    সিনেমাটিতে এক ফালি পুরনো কলকাতার ছবি ধরা পড়েছে।

    জীবনে সফল হয়ে তারা যেন গর্ব ভরে বলে, 'রোল কাকুর জন্যই আমাদের এই সফলতা।'

    ভোটের সময় ছাড়াও অন্যান্য সময় সরকার তৎপর হলে মানুষ বাঁচে।

    আহা এমনটা যদি পাঁচ বছর ধরেই হত! -4thpillars